‘স্পেকট্রামনির্ভর নয়, আগামী দিন হবে ফাইবারনির্ভর দুনিয়া’

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, আমি মোবাইলের জন্য যেই এআই, রোবটিক্স ও আইওটির জন্য ৫জি তরঙ্গ নিলাম করছি, সেই আয়োজন আপনি আগেই রেডি করে রেখেছেন। আপনার ফাইবার দিয়ে ১০০ জিবিপিএস গতির ইন্টারনেট সংযোগ দেয়ার সক্ষমতা আগেই দিয়ে রেখেছেন। অতএব আপনি সবচেয়ে শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ১৮ কোটি মানুষের কাছেই আপনাকে ব্যান্ডউইথ পৌঁছাতে হবে। কেননা আমাদের মেয়েরা উঠোন ঝাঁড়ু দেয়ার জন্য গ্রামের বাড়িতে রোবট ব্যবহার করবে। সেই দুনিয়ার সৈনিক আপনারা।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলে মন্ত্রী।

এর আগে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ১০২ পাউন্ড ওজনের কেক কাটা হয়। সেসাথে একই মঞ্চে নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযাগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। এরপর একে একে ক্রেস্ট গ্রহণ করেন সভাপতি ইমদাদুল হক, সিনিয়র সহ সভাপতি সাইফুল ইসলাম সিদ্দিক, সহ সভাপতি আনোয়ারুল আজিম, মহাসচিব নাজমুল করিম ভূঁইয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. কাইয়ুম রাশেদ, মো. আনোয়ার হোসেন, কোষাধক্ষ মো. আসাদুজ্জামান সুজন এবং পরিচালক এস এম জাকির হোসেন, মাহবুব আলম, সাকিফ আহমেদ, এ এম কামাল উদ্দিন সেলিমের পক্ষে মো. মহসিন, ফুয়াদ মুহাম্মাদ শরফুদ্দিন ও মো. নাসির উদ্দিন। প্রধান ও বিশেষ অতিথি এবং নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বাবুর কাছ থেকে এই ক্রেস্ট গ্রহণ করেন নতুন কমিটির সদস্যরা।

নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট ছাড়াও অনুষ্ঠানে আইএসএপিএবি’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম কামাল, বিসিএস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, বিজয় ডিজিটাল সিইও জেসমিন জুঁই এবং বিডিওএসএন সাধারণ সম্পাদক মুনীর হাসানকেও সম্মানিত করা হয়।

ইন্টারনেট সেবাদাতাদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন বলেন, ইন্টারনেট ব্যবহারে বাংলাদেশের মানুষ আনপ্রেডিক্টেবল। তারা যে কাণ্ডটি করেছে, এটা সম্ভবত বাংলাদেশের বহু পন্ডিত ব্যক্তি, ম্যাথমেটিশিয়ান হিসাব করে বের করতে পারেনি, এই চাহিদা কী পর্যায়ে যাবে। আপনার দুই হাজার সদস্য এখন হয়তো বড় জোর উপজেলা শহর এবং মাঝে মধ্যে মধুপুরের গ্রাম বা আমার বাড়ি কৃষ্ণপুরের মতো সরাসরি ব্যান্ডউইথ দেয়ার মতো অবস্থায় আছেন। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, আপনারা হয়তো এখনো ভাবছেন মোবাইল ইন্টারনেটে লোকজন ফেসবুক ব্রাউজ করে তাদের জীবন কাটিয়ে দেবে।

তিনি বলেন, আমি আপনাদেরকে বলি, হয় তো ওরা (মেবাইল অপারেটররা) এখন এমবিপিএস হিসাব করে ব্যান্ডউইথের হিসাব করে। ভবিষ্যতে এই জনগণ আপনার কাছ থেকে জিবিপএস ব্যান্ডউইথ চাইবে। এবং এই জিবিপএস ব্যান্ডউইথ আপনাদের দিতে হবে। আপনারা শুনে খুশি হবেন, আগামী দিন কিন্তু স্পেকট্রামনির্ভর দুনিয়া নয়। আগামী দিন ফাইবারনির্ভর দুনিয়া। তারের ওপর ভিত্তি করেই পঞ্চম প্রজন্মের ইন্টারনেট চলবে। তাই আপনারা সকল প্রযুক্তি থেকে এগিয়ে আছেন।

করোনায় ইন্টারনেট জনগণের ক্ষমতায়নে কী পরিমাণ শক্তি প্রদর্শন করতে পারে তার নমুনা দেখেছি উল্লেখ করে মোস্তাফা জব্বার বলেন, গত ১৫ আগস্ট পর্যন্ত দেশে ৩৩ হাজার জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করেছে দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা। দেশের ১৩ কোটি ইন্টারনেট ব্যাবহারকারী যে ৩৩ শ’ জিবিপিএস ইন্টারনেট ব্যবহার করবে তা আগে কল্পনাও করা যায়নি। করোনার নতুন পরিবর্তিত সময়ে ইন্টারনেটের চাহিদা যে হারে বাড়ছে তাতে রপ্তানি করে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার আগে হাতে থাকা ব্যান্ডউইথ দিয়ে সার্বিক চাহিদা পুরোপুরি মেটানো নিয়ে দুশ্চিন্তা দেখা দিয়েছে। কেননা এখন আমাদের হাতে যে ব্যান্ডউইথ ক্যাপাসিটি আছে তা দিয়ে সৌদিআরব, মালোয়েশিয়া এবং শ্রীলঙ্কার চাহিদা মেটানোর মতো অবস্থায় আমরা নেই।

বাংলাদেশের বিকাশে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বাণিজ্য সংগঠনগুলোর ভূমিকা অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য বিষয় মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, ইন্টারনেট সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে আইএসপিএবি যে দায়িত্ব পালন করছে তা সরকারের কাজকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। ইন্টারনেট সংযোগ যথাযথ ও সঠিকভাবে জনগণের দ্বারে পৌঁছছে কিনা; অবৈধ কোনো আইএসপি আছে কি না এটা নিশ্চিত করতে আইএসপিএবি-কে ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প রাস্তা নাই। আর কেউ সেবা ঠিক না দিলে বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটিকে কৈফিয়ত করতে হবে। তাদের সুপারিশেই অবৈধ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. খলিলুর রহমান বলেন, ইন্টারনেট সেবা বিষয়ে এখনো সবাই অবহিত নয়। তাই এ ক্ষেত্রে অনাহূতু কিছু সমস্যা আমাদের থাকবেই। এই যেমন- আজই সিলেটে টাওয়ারে কাজ করা কিছু লোককে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। আবার ঢাকার চকবাজারে আন্ডারগ্রাউন্ড ফাইবার বসাতে গিয়ে আমার সিটি করপোরেশনের সহযোগিতা পাই নি। এসব বিষয়ে আমাদের ধৈর্য ধরে সেবা দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে আইএসপিএবি মহাসচিব নাজমুল করিম ভূঁইয়া ইন্টারনেটে সংযুক্ত নয় এমন আরো ১৭ কোটি মানুষকে সংযোগ দেয়ার পথের প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সংশ্লিষ্টদের সাহায্য কামনা করেন।

সভাপতির বক্তব্যে সদস্যদের পক্ষে বেশ কিছু দাবি তুলে ধরে ইমদাদুল হক বলেন, আবারো ভ্যাট ১৫ শতাংশ করার পায়তারা চলছে। আমরা অনেক ভ্যালু অ্যাডেড সেবা দিলেও এখনো আইটিএস’র অন্তর্ভুক্ত করার জোর দাবি জানাচ্ছি। ঢাকায় ৩৬৫ টাকায় ব্যান্ডউইথ কিনলেও ঢাকার বাইরে কিনতে ব্যয় হয় প্রায় ৪০০ টাকা। এমন পরিস্থিতিতে এক দেশ এক রেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জের।