ইলেকট্রিক সাইকেল কিনলে মিলবে সরকারি সহায়তা

ভারতের দিল্লির পরিবেশ দূষণ ক্রমেই বাড়ছে। দূষণের হাত থেকে শহরটির বাসিন্দাদের বাঁচাতে অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দিল্লি সরকার সাধারণ মানুষ ইলেকট্রিক সাইকেল কিনতে উৎসাহ দিচ্ছে। কেউ ইলেকট্রিক সাইকেল কিনতে চাইলে তাকে সরকারি সহায়তায় ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে।

সরকারে পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দিল্লিতে প্রথম ১০ হাজার ইলেকট্রিক সাইকেলে ক্রেতাকে ৫৫০০ রুপি করে ভর্তুকি দেওয়া হবে। দিল্লির পরিবহন মন্ত্রী কৈলাস গেহলট চলতি সপ্তাহেই এই ঘোষণা দিয়েছেন।

তিনি জানিয়েছেন, প্রথম ১০০০ ইলেকট্রিক সাইকেল গ্রাহককে অতিরিক্ত ২০০০ রুপি করে ছাড় দেওয়া হবে।

এছাড়াও মন্ত্রী বলেন, সরকার বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য কার্গো ই-সাইকেল এবং ই-কার্ট ক্রয়ের উপর উচ্চ হারে শুল্কে ভর্তুকি দেবে। প্রথম ৫০০০ ক্রেতার জন্য কার্গো ই-সাইকেলে ১৫০০০ রুপির ভর্তুকি দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এর আগেও ই-কার্ট ক্রেতাদের আলাদা ভাবে ভর্তুকি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এবার কোনও কোম্পানি অথবা কর্পোরেট সংস্থাও ই-কার্ট কিনলে ভর্তুকি পাবেন। ৩০ হাজার রুপি করে এই ভর্তুকি দেওয়া হবে।

দিল্লির পরিবহন মন্ত্রী কৈলাস গেহলট জানান, শুধুমাত্র দিল্লির বাসিন্দারা ভর্তুকি স্কিম পাবেন।

কৈলাস গেহলট জানিয়েছেন, বর্তমানে দিল্লির রাস্তায় ৪৫ হাজার ৯০০টি ইলেকট্রিক বাহন চলছে। এর মধ্যে ৩৬ শতাংশই দুই চাকার গাড়ি বলে জানিয়েছেন তিনি। দিল্লিতে মোট রেজিস্টার করা যানবাহনে ই-বাহনগুলোর পরিমাণ ১২ শতাংশ ছাড়িয়ে গিয়েছে।

দিল্লিতে এমনিতেই পরিবেশ দূষণ একটি মাথাব্যথার কারণ। দূষণ নিয়ন্ত্রণে জোড়-বিজোড় গাড়ি পলিসি চালু করেছে দিল্লি সরকার। সেখানে ইলেকট্রিক ভেহিকেল জনপ্রিয় হলে, বায়ু দূষণ যে আরও কমবে, সে কথা বলাই যায়। কারণ, ইলেকট্রিক ভেহিকেলে পরিবেশ দূষিত করার মতো কোনও জ্বালানি ব্যবহার করা হয় না।