রোনালদোহীন ইউনাইটেডকে উড়িয়ে দিল সিটি

গতকাল ছিল ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সবচেয়ে আলোচিত লড়াই ম্যানচেস্টার ডার্বি। সেই ম্যাচে চিরপ্রতিপক্ষ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ৪-১ গোলে বিধ্বস্ত করে ম্যাচ জিতে নিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। কেভিন-ডি-ব্রুইন ও রিয়াদ মাহরেজ দু’জনেই করেছেন জোড়া গোল। এই ম্যাচে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে স্কোয়াডেই রাখেননি ইউনাইটেড কোচ রালফ রাংনিক।

গতকাল আক্রমণভাগের নেতৃত্বে ছিলেন মূলত মিডফিল্ডার হিসেবে খেলা ব্রুনো ফার্নান্দেজ। ৪-২-৩-১ ফর্মেশনে এদিন দল সাজান কোচ। দুই পাশে জর্ডান সাঞ্চো ও অ্যান্থোনি এলাঙ্গাকে নিয়ে পল পোগবা ছিলেন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে। তবে এমন ভূতুড়ে ফর্মেশন যে কাজে আসেনি তা বলাই বাহুল্য।

সিটির ঘরের মাঠে কাল পাত্তাই পায়নি রাংনিকের শিষ্যরা। ম্যাচের ৫ম মিনিটেই সিটিকে এগিয়ে নেন ডি-ব্রুইন। বার্নার্দো সিলভার পুলব্যাক থেকে গোল করে বেলজিয়ান তারকা পেয়ে যান নিজের ৫০তম প্রিমিয়ার লিগ গোল। তবে ২২ মিনিটে দারুণ এক গোল করে খেলায় সমতা ফেরান সাঞ্চো।

এদিন যেন ইউনাইটেডকে বিধ্বস্ত করবেন বলে পণ করে নেমেছিলেন ডি-ব্রুইন। তৃতীয় গোলেও অবদান রাখেন এই বেলজিয়ান। তার নেয়া কর্নার থেকে জোরালো ভলিতে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মাহরেজ। ৯০ মিনিটের পর যোগ করা অতিরিক্ত সময়ে গোল করে ম্যানইউর কফিনে শেষ পেরেকটাও ঠুকে দেন সাবেক লেস্টার সিটি ফরোয়ার্ড।
তার ডান পায়ের বাঁকানো শটের কোন উত্তর জানা ছিল না সিটি গোলরক্ষক এডারসনের। তবে গোল করার এই আনন্দ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি রোনালদোর সতীর্থদের। ২৮ মিনিটে ফিল ফোডেনের জোরালো শট ডেভিড ডি গিয়া ফিরিয়ে দিলে বল চলে যায় ডি ব্রুইনের পায়ে। বল জালে জড়াতে কোন ভুল করেননি বিশ্বের অন্যতম সেরা এই মিডফিল্ডার। ২-১ গোলে এগিয়ে যায় সিটি।

এদিন যেন ইউনাইটেডকে বিধ্বস্ত করবেন বলে পণ করে নেমেছিলেন ডি-ব্রুইন। তৃতীয় গোলেও অবদান রাখেন এই বেলজিয়ান। তার নেয়া কর্নার থেকে জোরালো ভলিতে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মাহরেজ। ৯০ মিনিটের পর যোগ করা অতিরিক্ত সময়ে গোল করে ম্যানইউর কফিনে শেষ পেরেকটাও ঠুকে দেন সাবেক লেস্টার সিটি ফরোয়ার্ড।

পুরো ম্যাচে তেমন কোন সুযোগ তৈরি করতে পারেনি ম্যানইউ। খেলার মাত্র ৩০ শতাংশ সময় বল পায়ে রাখতে পেরেছেন ফার্নান্দেজ, পোগবারা। গোলবারে এদিন ত্রাস ছড়াতেও ব্যর্থ হয়েছেন ইউনাইটেড খেলোয়াড়রা। সিটির ২৪ শটের বিপরীতে রেড ডেভিলরা শট নিতে পেরেছে মাত্র ৫টি। এই পরাজয়ে আবারও প্রিমিয়ার লিগ পয়েন্ট টেবিলের সেরা চার থেকে ছিটকে গেল ইউনাইটেড।