রুটের টানা দ্বিতীয় শতক, বড় সংগ্রহের পথে ইংল্যান্ড

নর্থ সাউন্ড টেস্টের ধারাবাহিকতা দেখা গেল ইংল্যান্ডের টেস্ট অধিনায়ক জো রুটের ব্যাটে। প্রথম ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে অধিনায়কোচিত শতরানের ইনিংস উপহার দেন রুট। জ্যাক ক্রলির সাথে রুটের ২০১ রানের জুটির সুবাদে ৬৪ রানে পিছিয়ে পড়েও দ্বিতীয় ইনিংসে বড় সংগ্রহ করায় ড্র হয় ম্যাচ। এবার সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও দেখা মিলেছে ২০২১ সাল থেকে দলের ব্যাটারদের মধ্যে একাই লড়ে যাওয়া রুটের।

অ্যান্টিগার মতো বার্বাডোজ টেস্টেও টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে যায় সফরকারীরা। প্রথম ইনিংসে প্রথম দিন শেষে ৩ উইকেটে ২৪৪ রান করেছে ইংল্যান্ড। এর মধ্যে রুট একাই করেছেন হার না মানা ১১৯ রান।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে ইংল্যান্ড। দলীয় ৪ রানের মাথায় আউট হন অ্যান্টিগা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে শতক হাঁকানো জ্যাক ক্রলি। ব্যক্তিগত শূন্য রানেই ফেরেন ক্রলি।

এরপর অ্যালেক্স লিসকে সাথে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৭৬ রানের জুটি গড়েন রুট। এ জুটি ধীরগতিতে ২৫১ বলে এ রান তুলে। লিস ৩০ রান করে আউট হলে ব্যাট হাতে আসেন ড্যান লরেন্স।

লরেন্স ও রুট দুজনে মিলে দিনের বাকি সময় পার করেন। এবার রানের গতি আগের চেয়ে বেড়ে যায়। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ২৭১ বল খেলে ১৬৪ রান যোগ করেন রুট- লরেন্স।

দিনের শেষে গিয়ে ১৫০ বলে সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৯ রান দূরে থাকতেই আউট হন লরেন্স। ৩ উইকেট হারিয়ে ২৪৪ রানে দিন শেষ করে ইংল্যান্ড। লরেন্স সেঞ্চুরি না পেলেও বঞ্চিত হননি রুট। ২৪৬ বল খেলে অপরাজিত আছেন ১১৯ রানে।

ইংলিশ দলের স্কোরকার্ড আরও পাকাপোক্ত হতো। কিন্তু শেষ ওভারে এক ভুল করে বসেন রুটকে দারুণ সঙ্গ দেওয়া ইংল্যান্ড মিডল অর্ডার ব্যাটার ড্যান লরেন্স।

ব্যাটিংয়ে ২০২১ সালের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছেন ইংলিশ অধিনায়ক। গত বছর ৬১ গড়ে করেছিলেন ১৭০৮ রান। যার মধ্যে ছিল ছয় সেঞ্চুরি ও চার ফিফটি।
দিনের শেষ ওভারে বল হাতে আসেন জেসন হোল্ডার। ওই ওভারে তৃতীয় ও চতুর্থ বলে দুই চার মেরে ৯১ রানে পৌঁছে যান লরেন্স। কিন্তু পরের বলে আবারও বাউন্ডারি মারতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েটের হাতে স্লিপে ধরা পড়েন লরেন্স। এ উইকেটের পর শেষ হয় দিনের খেলা।

হোল্ডারের সঙ্গে বল হাতে একটি করে উইকেট নেন বাঁহাতি স্পিনার ভেরাসামি পারমল ও তরুণ পেসার জেডেন সিলস।

প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইংনিসের পর বার্বাডোজ টেস্ট, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যাক টু ব্যাক শতক হাঁকালেন রুট। এটি তার টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৫তম সেঞ্চুরি।

ব্যাটিংয়ে ২০২১ সালের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছেন ইংলিশ অধিনায়ক। গত বছর ৬১ গড়ে করেছিলেন ১৭০৮ রান। যার মধ্যে ছিল ছয় সেঞ্চুরি ও চার ফিফটি।

উল্লেখ্য, এক রুট বাদে গত বছর ইংলিশ ব্যাটারদের মধ্যে তেমন কেউই আলো ছড়াতে পারেনি। যে কারণে অ্যাশেজ সিরিজের পাশাপাশি টেস্টে মোট ৯ ম্যাচে হারের স্বাদ পায় ইংল্যান্ড।