দুই সতীর্থের লড়াইয়ে শেষ হাসি হাসলেন মানে

মোহাম্মদ সালাহ ও সাদিও মানে। ফুটবল বিশ্বে মুসলিমদের প্রতিনিধিত্ব করে থাকেন সময়ের অন্যতম সেরা এই দুই ফরোয়ার্ড। তবে কাতার বিশ্বকাপে দেখা যাবে না ইংল্যান্ডে মুসলিম বিদ্বেষ কমাতে ভূমিকা রাখা সালাহ। প্রথম লেগ জিতলেও দ্বিতীয় লেগে আর সেনেগালের বিপক্ষে পরাজয় এড়াতে পারেনি মিসর। আফ্রিকান অঞ্চলের প্লে অফের ফিরতি লেগে পেনাল্টি শুটআউটে ৩-১ গোলে হেরেছে সালাহর দল।

লিভারপুলের দুই সতীর্থের মুখোমুখি লড়াইয়ের এই ম্যাচ রাঙাতে ব্যর্থ হয়েছেন সালাহ। পেনাল্টি মিস করে ডুবিয়েছেন দলকে৷ এই হারে ২০২২ বিশ্বকাপে আর খেলা হচ্ছে না মিসরের। সালাহর মন খারাপের দিনে ঠিকই শেষ হাসি হেসেছেন তারই ক্লাব সতীর্থ মানে।

কিছুটা রক্ষণাত্মক কৌশলে খেলতে থাকা মিসর ম্যাচের চতুর্থ মিনিটে ডিফেন্ডারদের ভুলে হজম করে বসে গোল। গোল পেয়ে আরও আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে সেনেগাল। একের পর এক আক্রমণে ত্রাস ছড়িয়েছে মিসর রক্ষণে। মানেদের আটকাতেই বেশি ব্যস্ত ছিল সালাহর দল, পায়নি আর গোলের দেখা। ফলে খেলা গড়ায় পেনাল্টি শুটআউটে।

সেনেগালের প্রথম শট লাগে ক্রসবারে। এরপরই সালাহ করে বসেন পেনাল্টি মিস। মিসরের আশা ফিকে হয়ে যায় তখনই৷ পরের তিন শটেই গোল করে সেনেগাল। এদিকে মিসরের পক্ষে দ্বিতীয় ও চতুর্থ পেনাল্টি মিস করেন জিজু, মোহামেদ। তাতেই টানা দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের টিকিট পায় সেনেগাল। ৩-১ গোলের হার নিয়ে হতাশচিত্তে মাঠ ছাড়েন সালাহরা।