‘সীমান্ত হত্যা শূন্যে নামাতে চায় বিজিবি-বিএসএফ’

সীমান্তে হত্যা বন্ধে বিজিবি ও বিএসএফের সৌহার্দ্যপূর্ণ মনোভাবের কোনো কমতি নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদ।

তিনি বলেছেন, পতাকা বৈঠক থেকে শুরু করে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে সীমান্তে হত্যা বন্ধের বিষয়ে আমরা উভয়ে (বিজিবি-বিএসএফ) আলোচনা করি। আমরা উভয়পক্ষই চাই এটি শূন্যতে নামিয়ে আনতে।

বুধবার (২৩ মার্চ) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া আইসিপি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি। বিজিবি প্রধানকে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের শূন্যরেখায় বিএসএফের একটি দল স্বাগত জানান।

গত দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে হত্যা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। গত এক দশকে সীমান্তে হত্যা কমলেও শান্তি বজায় থাকা অবস্থায় বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত বিশ্বের সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী হিসেবে আলোচনায় উঠে এসেছে। এটি নিয়ে বাংলাদেশের পাশাপাশি সোচ্চার ভারতের মানবাধিকার সংঠনগুলোও।

বিজিবি-বিএসএফের বৈঠকে সীমান্ত হত্যার বিষয়টি নিয়ে বারবার আলোচনা উঠে আসে। বৈঠকে উভয়পক্ষ সীমান্তে হত্যা শূন্যে নামাতে চাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও বন্ধ হয়নি হত্যাকাণ্ড। প্রায়ই বিএসএফের হাতে বাংলাদেশি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, ‘আমরা উভয়পক্ষই চাই এটি শূন্যতে নামিয়ে আনতে। যেভাবে আমরা কাজ করছি, একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াচ্ছি; এতে এ বিষয়ে অবশ্যই উন্নতি হবে বলে আশা করছি।’

বিএসএফের বাধায় আখাউড়া ইমিগ্রেশন ভবন নির্মাণ কাজ বন্ধের বিষয়ে সাকিল আহমেদ বলেন, ‘এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক কিছু নিয়ম আছে। সেগুলো আমাদের মানতে হয়, তাদেরও মানতে হয়। আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনেই এই নির্মাণ কাজটা আমরা করব। এ বিষয়ে আমাদের উচ্চ এবং মন্ত্রণালয় পর্যায়ে পত্রালাপ করা আছে। আমরা কাজ করছি যত দ্রুত সম্ভব এটা সমাধান করার জন্য।’

বিজিবি মহাপরিচালকের সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর অন্যান্য কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।