বিবিএসকে সঠিক তথ্য সংগ্রহ ও প্রকাশে সতর্ক থাকতে হবে

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেছেন, জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রক্রিয়াধীন। এ বিষয়টি গত ১৩ বছরে আমরা উপলব্ধি করেছি। বর্তমানে জাতীয় পরিকল্পনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে বিবিএস। এ জন্য বিবিএসকে সঠিক তথ্য সংগ্রহে ও প্রকাশে আরও সতর্ক হতে হবে। দেশ-বিদেশে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করতে হলে সঠিক তথ্যের কোনো বিকল্প নেই। দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে হলেও তথ্যের প্রয়োজন হবে। এজন্য সঠিক তথ্য সঠিক সময়ে প্রকাশ করতে হবে।

রোববার (২৭ ফেব্রুয়ারি) নগরীর পরিসংখ্যান ভবনের মিলনায়তনে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস ২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম মান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিনের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন বিবিএস মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলামসহ সংশ্লিষ্টরা।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, পরিসংখ্যান আইন অনুযায়ী সরকারের যেকোনো সংস্থা তথ্য সংগ্রহ করতে পারে। তবে তারা কী মডিউল ব্যবহার করে তথ্য সংগ্রহ করবে, সেটি বিবিএস থেকে অনুমোদন করে নিতে হয়। অর্থাৎ জাতীয়ভাবে সব তথ্যের একক কর্তৃত্ব পরিসংখ্যান বিভাগের। পরিসংখ্যান আইনে এভাবেই বলা আছে। কারণ কোনো এজেন্সির করা পরিসংখ্যানে যদি তথ্যের গরমিল হয় তাহলে দিনশেষে এর দায় পরিসংখ্যান বিভাগের ওপর এসে পড়ে। যদিও অন্যান্য সংস্থা এসব তথ্য সংগ্রহ করে কিন্তু শেষ বিচারে এর দায়িত্ব বিবিএসের। এ জন্য বিবিএসকে অত্যন্ত সতর্ক হতে হবে। বিশেষ করে অন্যান্য সংস্থাগুলো যেসব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে সেগুলো বিবিএসের সঙ্গে সমন্বয় করে করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ৩০ থেকে ৩৫টি সূচক আছে। যেগুলোর মাধ্যমে প্রতিটা দেশের অবস্থান নির্ধারণ করা হয়। এ আন্তর্জাতিক সূচকগুলো অত্যন্ত সমন্বিত প্রতিষ্ঠান থেকে তৈরি ও প্রক্ষেপণ করা হয়। কাজেই আমরা আন্তর্জাতিক এ বিষয়গুলো দেখি। ফলে এগুলো আমরা উড়িয়ে দিতে পারি না। ব্র্যান্ডিং করতে আন্তর্জাতিক সূচকগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কাজেই আন্তর্জাতিক সূচকগুলোর দিকে বিবিএসকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখতে হবে। আন্তর্জাতিক সূচকগুলোর সঙ্গে যদি আপনাদের দূরত্ব থাকে তাহলে তা কমিয়ে আনতে হবে। আন্তর্জাতিক কোনো সূচককেই অবজ্ঞা করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, আমার যে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে প্রবেশ করেছি, সেটা কিন্তু আন্তর্জাতিক সূচকের উপর ভর করেই করেছি। বিবিএসের উন্নয়নে চারটি বিষয় উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে। প্রথম বিবিএসকে সঠিক তথ্য নিশ্চিত করতে হবে। দ্বিতীয়, সময়মত তথ্য প্রকাশ করতে হবে। তৃতীয়, সমন্বয় করে তথ্য দিয়ে রিপোর্ট প্রকাশ করতে হবে। সকল সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করলেই কেবল সঠিক পরিসংখ্যান করা সম্ভব। অন্যের সঙ্গে সমন্বয় করার বিষয়টা নীতিগতভাবে সামনে রাখতে হবে। সর্বশেষ স্বচ্ছতার জায়গাটা নিশ্চিত করতে হবে। স্বচ্ছতার জন্য জাতীয় পরিসংখ্যান কমিটিতে সাংবাদিকসহ ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।