‘বাংলাদেশে এসেছি শুনতে ও শিখতে’

বাংলাদেশের সঙ্গে নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং জ্বালানি দক্ষতা ও নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে স্থানান্তরের প্রচেষ্টাকে ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে অংশীদারত্ব বাড়াতে চায় জার্মানি। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বাংলাদেশের প্রধান অংশীদার হতে আগ্রহী দেশটি।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বৈশ্বিক জলবায়ু পদক্ষেপ বিষয়ক বিশেষ দূত জেনিফার মরগ্যান এই কথা জানিয়েছেন।

শনিবার (৯এপ্রিল) রাজধানীর একটি হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে জেনিফার মরগ্যান এই কথা বলেন। এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত আখিম ট্র্যোস্টার উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জেনিফার মরগ্যান বলেন, আমি মনে করি, আমাদের একে অপরের থেকে অনেক কিছু শেখার রয়েছে। আমরা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিয়ে অংশীদারত্ব আরও বাড়াতে চাই।

বাংলাদেশের সঙ্গে সহযোগিতার দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমি বাংলাদেশে এসেছি শুনতে ও শিখতে। সেই সঙ্গে দেখতে আমরা কী করতে পারি। বাংলাদেশে নাগরিক সমাজ প্রতিদিনই মানুষের কল্যাণে কাজ করছে।

জলবায়ু নিয়ে বাংলাদেশে বেশ ভালো কাজ হয়েছে জানিয়ে জেনিফার মরগ্যান বলেন, আমরা বাংলাদেশের কাছ থেকে শিখতে পারি কীভাবে জলবায়ু সংকটের প্রভাবগুলো মোকাবিলা করতে হয়। জলবায়ুর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ জার্মানির প্রধান অংশীদার হিসেবে থাকবে। আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে বিভিন্ন প্রকল্পর বিষয়ে কাজ করব।

জেনিফার মরগ্যান আরও বলেন, রাশিয়ার যুদ্ধ নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে নির্ভরতার দিকে ঝুঁকিয়েছে। এই যুদ্ধ আমাদের সে পথ দেখাচ্ছে। একটা দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের দিকে নিয়ে যাচ্ছে আমাদের।

আন্তর্জাতিক পরিবেশবাদী সংগঠন গ্রিনপিসের সাবেক নির্বাহী পরিচালক জেনিফার মরগ্যান গত মাসে বৈশ্বিক জলবায়ু পদক্ষেপবিষয়ক বিশেষ দূত হিসেবে দায়িত্ব পান।