জেল থেকে বেরিয়েই ইভ্যালি চালুর আশাবাদ শামীমার

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির সাবেক চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন জেল থেকে বের হয়েই প্রতিষ্ঠানটিকে পুনরায় চালু করার ব্যাপারে আশাবাদ প্রকাশ করেছেন। প্রতিষ্ঠানটির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল জামিনে মুক্ত হলে তাকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি আবার চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। যদিও প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনায় ইতোমধ্যে হাইকোর্ট পাঁচ সদস্যের একটি বোর্ড করে দিয়েছেন। সেই বোর্ডই ইভ্যালিসংক্রান্ত যাবতীয় বিষয় দেখভাল করছে।

শুক্রবার (৮ এপ্রিল) রাতে ইভ্যালির ৩০ হাজার গ্রাহক ও মার্চেন্টকে নিয়ে গঠিত এক গ্রুপে ভার্চুয়াল আলোচনায় শামীমা নাসরিন বলেন, ‘আপনারা যারা আমাদের সাথে ছিলেন, সময় দিয়েছেন, সুযোগ দিয়েছেন, আমাদের ওপর বিশ্বাস রেখেছেন, আশা করি ভবিষ্যতে আরও কিছুটা সময় আমাদের সাথে থাকবেন, যেন আমরা সবকিছু গুছিয়ে তুলতে পারি। আমরা মাননীয় হাইকোর্ট নির্দেশনা মেনে কীভাবে কী করা যায় তা নিয়েও কথা বলবো। আমি চেষ্টা করবো যত সম্ভব দ্রুত রাসেলকে (ইভ্যালি সিইও) জামিনে মুক্ত করে তাকে নিয়ে ইভ্যালিকে পুনরায় চালু করতে।’

সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের ধন্যবাদ জানাই যারা আমার পাশে ছিলেন, ধন্যবাদ জানাই যারা ইভ্যালিকে শেষ হতে দেননি এখন পর্যন্ত। আপনারা জানেন ইভ্যালি বিষয় এখন মাননীয় হাইকোর্ট কর্তৃক গঠিত কমিটি দেখছে। তাই আমি এখন সব কিছু সরাসরি মন্তব্য করতে পারছি না। তবে কমিটি এবং মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুযায়ী আমরা কাজ করবো। সেই অনুযায়ী ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করবো কীভাবে কী করতে হবে।’

শামীমা বলেন, ‘যেহেতু জেল থেকে মুক্তি পেয়েছি কীভাবে সবকিছু আবার নতুনভাবে শুরু করা যায় সেটার চেষ্টা করবো আমাদের সর্বোচ্চ শক্তি ও সামর্থ্য দিয়ে। যতদিন আমরা গ্রেফতার ছিলাম এই সময়ের খারাপ সময়গুলো আমরা ওভারকাম করতে পারবো।’

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় শামীমা নাসরিন গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগার থেকে মুক্তি পান।

এদিকে চেয়ারম্যানের মুক্তিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ইভ্যালির গ্রাহক মার্চেন্টরা মিষ্টি বিতরণসহ ইফতার পার্টির আয়োজন করেন। ইভ্যালির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল এখনও কারাগারে রয়েছেন। গ্রাহকরা তার মুক্তিও দাবি করেছেন্