রাশিয়াকে সহায়তা করতে ইউক্রেনে সেনা পাঠাচ্ছে বেলারুশ!

টানা পঞ্চম দিনের মতো ইউক্রেনে চলছে রাশিয়ার বিশেষ সামরিক অভিযান। এই কয়েকদিনে পূর্ব ইউরোপের এই দেশটির বেশ কয়েকটি শহরের দখল নেওয়ার পাশাপাশি রাজধানী কিয়েভ দখলেও এগিয়ে গেছে রুশ সেনারা। এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনে বেলারুশের সেনা পাঠানোর গুঞ্জন উঠেছে।

মূলত চলমান সামরিক অভিযানে রুশ বাহিনীকে সহায়তা করতেই বেলারুশ ইউক্রেনে সেনা পাঠাতে যাচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের বরাত দিয়ে সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

গত বৃহস্পতিবার ভোরে ইউক্রেনে ঢুকে হামলা শুরু করে রাশিয়ান সৈন্যরা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপে এটিকে অন্যতম বড় হামলার ঘটনা হিসেবে বলা হচ্ছে। একসঙ্গে তিন দিক থেকে চালানো এই হামলায় বরাবরই রাশিয়ার পক্ষাবলম্বনই করে এসেছে বেলারুশ।

যুক্তরাষ্ট্রের অজ্ঞাত এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট জানিয়েছে, ইউক্রেনে সেনা পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে বেলারুশ এবং সেটি আজই শুরু হতে পারে। অবশ্য এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে হোয়াইট হাউস ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের কাছে ইমেইল করেছে বিবিসি।

অন্যদিকে ইউক্রেনের সংবাদমাধ্যম কিয়েভ ইন্ডিপেন্ডেন্ট বেশ কয়েকটি সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ইউক্রেনে ইতোমধ্যেই বেলারুশের প্যারট্রুপারদের মোতায়েন করা হয়ে থাকতে পারে।

সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই বেলারুশ মূলত রাশিয়ার মিত্র দেশ হিসেবেই পরিচিত। মস্কোর ঘনিষ্ঠ বন্ধু এই দেশটির উত্তরে ইউক্রেনের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে।

অবশ্য রোববার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি জানান, বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কোর সঙ্গে তার ফোনে কথা হয়েছে এবং ইউক্রেনে বেলারুশের সেনা পাঠানো হবে না বলে তিনি নিশ্চিয়তা দিয়েছেন।