যুক্তরাষ্ট্রে ৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের টিকাদান চলতি মাসেই

করোনাভাইরাস মহামারি প্রতিরোধে চলমান ফেব্রুয়ারি মাসেই ৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের কোভিড-১৯ টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা করছে যুক্তরাষ্ট্র। আগামী ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে দেশটির অল্পবয়সী এই শিশুদের শরীরে টিকা প্রয়োগ শুরু হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা বিষয়ক প্রধান সরকারি সংস্থা সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)-র একটি নথির বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা প্রতিরোধে ২ থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের শরীরে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য ফাইজার বায়োএনটেকের টিকাকে অনুমোদন দেওয়ার কথা বিবেচনা করছে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ বিষয়ক প্রধান নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)। যদিও পরীক্ষামূলক প্রয়োগের সময় ফাইজারের টিকা কিশোর ও প্রাপ্তবয়স্কদের মতো ৫ বছরের নিচের অল্পবয়সী শিশুদের শরীরে প্রত্যাশা অনুযায়ী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে পারেনি।

তবে মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ফাইজার বলছে, জরুরি জনস্বাস্থ্যবিষয়ক প্রয়োজনীয়তা পূরণের তাগিদেই এফডিএ’র পরামর্শে অল্পবয়সী শিশুদের শরীরে প্রয়োগের জন্য টিকার অনুমোদন চেয়ে সংস্থাটির কাছে আবেদন করেছে তারা।

রয়টার্স বলছে, ৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের শরীরে প্রয়োগের জন্য টিকার অনুমোদন দেওয়া হবে কি না সে বিষয়ে আলোচনা করতে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি সংস্থাটির বাইরের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটির বৈঠকে বসার কথা রয়েছে। বৈঠকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেলে সিডিসি’র বিশেষজ্ঞরা আলোচনায় বসবেন এবং কিভাবে অল্পবয়সী শিশুদের টিকাদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে সেটি নির্ধারণ করবেন।

অর্থাৎ ওই বৈঠকের এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ২ থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের শরীরে টিকা প্রয়োগ শুরু হতে পারে।

সিডিসি’র নথিতে বলা হয়েছে, এফডিএ অল্পবয়সী শিশুদের শরীরে প্রয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় অনুমোদন দিলে ফেব্রুয়ারি মাস শেষ হওয়ার আগেই অঙ্গরাজ্যগুলোতে প্রাথমিকভাবে ১ কোটি ডোজ ফাইজারের টিকা ও অন্যান্য সরঞ্জাম পাঠানোর পরিকল্পনা করছে যুক্তরাষ্ট্রের সরকার।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা বিষয়ক প্রধান সরকারি এই সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে ৬ মাস থেকে চার বছর বয়সী মোট শিশুর সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ। আর তাই প্রাথমিকভাবে ১ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহের পরও অতিরিক্ত আরও টিকা সরবরাহ করতে হবে।

রয়টার্স বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের যেসব এলাকার শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকিতে রয়েছে মূলত সেসব এলাকা আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে।

এছাড়া অনুমোদন পেলে অল্পবয়সী এই শিশুদের শরীরে কম ডোজের টিকা প্রয়োগ করা হবে। ৫ বছরের নিচের শিশুদের জন্য প্রতি ডোজে ৩ মাইক্রোগ্রাম টিকা পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করেছে ফাইজার। ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে এটি ১০ মাইক্রোগ্রাম এবং ১২ বছর ও এর বেশি বয়সীদের ক্ষেত্রে প্রতি ডোজে টিকার পরিমাণ ৩০ মাইক্রোগ্রাম।

এর আগে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে গত বছরের অক্টোবর মাসের শেষে ৫ বছর থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের জন্য ফাইজারের করোনা টিকার অনুমোদন দেয় যুক্তরাষ্ট্র। উত্তর আমেরিকার এই দেশটিতে বর্তমানে ৫ বছর থেকে শুরু করে এর বেশি বয়সীদের ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে। তবে এফডিএ’র অনুমোদন পেলে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে চলতি মাসেই ৫ বছরের কমবয়সী শিশুদের টিকদানের কাজ শুরু করবে দেশটি।