বেলগ্রেডে রুশপন্থীদের বিশাল পদযাত্রা

ইউক্রেনে আগ্রাসনের মধ্যে মস্কোর সমর্থনে সার্বিয়ার রাজধানী বেলগ্রেডে মিছিল করেছে হাজার হাজার রুশপন্থী সার্ব নাগরিক। রাশিয়ার পতাকা এবং ভ্লাদিমির পুতিনের ছবি বহনকারী পদযাত্রাটি শহর প্রদক্ষিণ করে রুশ দূতাবাসের সম্মুখে অবস্থান নেয়।

বিক্ষোভকারীদের মধ্যে রাশিয়ার ‘নাইট উলভস’ মোটরসাইকেল ক্লাবের স্থানীয় সদস্যরাও ছিলেন। পুতিনের ঘনিষ্ঠ দলটি ২০১৪ সালে ক্রিমিয়া সংকট এবং ডনবাস অঞ্চলে যুদ্ধের সময় রাশিয়াপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের পক্ষে লড়াই করেছিল।

সার্বিয়া একই সাথে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য এবং রাশিয়ার সাথে শতাব্দী প্রাচীন ধর্মীয়, জাতিগত এবং রাজনৈতিক ভারসাম্য বজায় রেখে চলছে। এমনকি বলকান যুদ্ধে দেশটির ওপর ন্যাটোর বোমা হামলার তীব্র বিরোধিতা করেছিল রাশিয়া।

রাশিয়ার সমর্থনে মিছিলটিতে অন্তত ৪ হাজার সার্ব নাগরিক যোগদান করেছে বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স। পদযাত্রায় বাজছিল রুশ এবং সার্বিয়ান সঙ্গীত।

আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হবে সার্বিয়ার সাধারণ নির্বাচন। নির্বাচনের আগে সার্বিয়ার রাষ্ট্রপতি আলেকসান্ডার ভুসিক নাগরিকদের সমর্থন ধরে রাখার চেষ্টা করছেন। সার্বিয়ার সাবেক বিচ্ছিন্ন প্রদেশ কসোভোকে স্বীকৃতি না দিতে রাশিয়ার ভূমিকা স্মরণ করেছেন তিনি।

১৯৯৯ সালে শুরু হয় কসোভো যুদ্ধ। যুগোশ্লাভিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে ন্যাটোর ‘ইউনাইটেড এলাইড ফোর্স’ যুদ্ধ ঘোষণা করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ভয়াবহ সিরিজ বিমান হামলার পর কসোভোতে প্রবেশ করে ন্যাটো।

২০০২ সালে ভাঙনের পূর্বে যুগোশ্লাভিয়া ছিল সোভিয়েত ইউনিয়নের একান্ত সমর্থক। যুগোশ্লাভিয়া ভেঙে জন্ম নেয় সার্বিয়া ও মন্টিনিগ্রো। ২০০০ সালের পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ লাভের মধ্য দিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়নের যাত্রা শুরু করে সার্বিয়া।