বিদেশি যাত্রীদের বাধ্যতামূলক কোভিড টেস্ট প্রত্যাহার করছে ব্রিটেন

বিদেশি যাত্রীদের যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করার সময় বিমানবন্দরে করোনা টেস্ট করানোর যে বাধ্যবাধকতা ছিল- তা প্রত্যাহার করছে দেশটির সরকার। আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে এই নিয়ম কার্যকর করা হবে।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের একটি সরকারি ওয়েবসাইটে এ সম্পর্কে বলা হয়, ‘স্কুল ছুটির দিনগুলোতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যারা ব্রিটেনে বেড়াতে আসতে চান- তাদের জন্য নিঃসন্দেহে এটি একটি আনন্দের খবর। পাশাপাশি, মহামারির কারণে বিপর্যস্ত আমাদের পর্যটন খাতের জন্যও এটি বড় সুসংবাদ।’

‘দেশের টিকাদান ও বুস্টার কর্মসূচির সাফল্যই সরকারের এই সাহসী পদক্ষেপের মূল ভিত্তি। সরকার এই কর্মসূচি পরিচালনাকারী কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছে। শিগগিরই ভ্রমণ বিষয়ক আরও কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করা হবে।’

বিদেশি যাত্রীদের জন্য এতদিন যুক্তরাজ্যে পৌঁছানোর পর বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর টেস্ট বাধ্যতামূলক ছিল; এবং টেস্ট বাবদ প্রত্যেক যাত্রীকে ব্যয় করতে হতো ১০০ পাউন্ড বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১১ হাজার ৪৯৪ টাকা।

নতুন নিয়ম কার্যকর হলে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে এই টাকা বাঁচাতে পারবেন যুক্তরাজ্যে আসা বিদেশি ভ্রমণকারীরা।

যুক্তরাজ্যের বিমান পরিষেবা সংস্থা মিডাস এভিয়েশনের অংশীদার জন গ্রান্ট সরকারের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘(এই নিয়ম চালুর জন্য) যদিও ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হবে, তবু আমরা বলব- সরকার সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নতুন নিয়ম কার্যকর হলে যাত্রীদের ভোগান্তি অনেকাংশে কমবে। আমরা সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই।’

২০২০ সালে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ১ কোটি ৩৬ লাখ ৭ হাজার ৮৩২ জন এবং এই রোগে মৃত্যু হয়েছে মোট ১ লাখ ৫৭ হাজার ৭৩০ জনের।

তবে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচি বেশ সফলভাবে পরিচালনা করতে পেরেছে দেশটির সরকার। বর্তমানে যুক্তরাজ্যের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি টিকার দুই ডোজ সম্পূর্ণ করেছেন, আর টিকার তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ নিয়েছেন ৪০ শতাংশেরও বেশি মানুষ।