বাইডেন-শি বৈঠকের পর চীনের অবস্থান কি বদলেছে

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং চীনা প্রেসিডেন্ট শি ঝিনপিংয়ের মধ্যে ভিডিও কলে বৈঠক হওয়ার পরেও ইউক্রেন ইস্যুতে চীনের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন লক্ষ করা যাচ্ছে না। চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমগুলাতে বরং চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ানের সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা বেশি গুরুত্ব পেয়েছে। বেইজিংয়ে থাকা আল-জাজিরার সাংবাদিক ক্যাটরিনা ইউ এ মন্তব্য করেছেন।

ক্যাটরিনা বেশ কিছুদিন ধরেই চীনের গণমাধ্যমগুলোর ওপর তীক্ষ্ম নজর রাখছেন। তিনি চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমগুলো বিশ্লেষণ করে বলেছেন, ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়াকে সমর্থন দেয়ার ঝুঁকি সম্পর্কে বাইডেনের হুমকির কোনো প্রাধান্য নেই চীনা গণমাধ্যমের প্রতিবেদনগুলোতে। এর চেয়ে তারা দুই দেশের মধ্যে চলমান উত্তেজনা প্রশমনে বেশি গুরুত্ব দিয়ে খবর প্রকাশ করছে। চীনা গণমাধ্যমগুলো লিখেছে, অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাগুলো যুদ্ধ বন্ধে কোনো ভূমিকা রাখবে না, বরং বৈশ্বিক অর্থনীতির ক্ষতি করবে। আমরা আসলে চীনের অবস্থান পরিবর্তনের কোনো লক্ষণ দেখছি না।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরুর পর চীনের কাছে রাশিয়া অস্ত্র ও আর্থিক সহায়তা চেয়েছে বলে অভিযোগ করে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। চীন যদি রাশিয়াকে সহায়তা করে, তবে চীনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে ওয়াশিংটন দ্বিধা করবে না বলেও সতর্ক করেছেন তিনি।

এর মধ্যে গতকাল শুক্রবার জো বাইডেন ও শি ঝিনপিং ভিডিও কলে কথা বলেছেন। শি ঝিনপিং বাইডেনকে বলেছেন, ‘সংঘাতের মাধ্যমে কেউই লাভবান হতে পারে না। ইউক্রেন সংকট এমন কিছু, যা আমরা দেখতে চাই না। চীন ও যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক সঠিক পথে পরিচালিত করতে হবে। পাশাপাশি উভয় পক্ষকেই আন্তর্জাতিক দায়িত্ব পালন করতে হবে এবং বিশ্বশান্তির জন্য প্রচেষ্টা চালাতে হবে।’