ঝড়ে ভাঙলো নিউটনের সেই ‘আপেল গাছ’

স্যার আইজ্যাক নিউটনের মহাকর্ষের সূত্র আবিষ্কারের স্মৃতি বিজড়িত ‘নিউটনের আপেল গাছটি’ ঝড়ে ভেঙে গেছে। যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটির বোটানিক্যাল গার্ডেনের মধ্যে এই গাছটি ছিল এবং শক্তিশালী ঝড় ইউনিসের তাণ্ডবে গত শুক্রবার সেটি ভেঙে যায়। সোমবার (২১ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

বোটানিক্যাল গার্ডেনের কিউরেটর ড. স্যামুয়েল ব্রোকিংটন বলেছেন, মহাকর্ষের সূত্র আবিষ্কারের স্মৃতি বিজড়িত এই আপেল গাছটি ১৯৫৪ সালে লাগানো হয়েছিল এবং বোটানিক্যাল গার্ডেনের ব্রুকসাইড প্রবেশদ্বারে ৬৮ বছর ধরে এটি দাঁড়িয়ে ছিল।

অবশ্য স্যার আইজ্যাক নিউটনের মহাকর্ষের সূত্র আবিষ্কারের স্মৃতি বিজড়িত হলেও এই গাছটি সরাসরি নিউটনের সময়কার সেই আপেল গাছ নয়। সূত্র আবিষ্কারের সঙ্গে সরাসরি জড়িত গাছটি থেকে ক্লোন করে এই গাছটি রোপন করা হয়েছিল। অর্থাৎ মাধ্যাকর্ষণ সূত্র আবিষ্কারের সঙ্গে জড়িত আপেল গাছটি থেকে শুক্রবার ঝড়ে পড়ে যাওয়া গাছটিকে ক্লোন করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ড. স্যামুয়েল।

এদিকে বোটানিক্যাল গার্ডেন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের কাছে এই গাছের একটি ক্লোন আছে এবং শিগগিরই সেটি বাগানে রোপন করা হবে।

বিবিসি বলছে, স্যার আইজ্যাক নিউটনের মাথায় যে গাছটি থেকে আপেল পড়েছিল সেটি লিংক্লনশায়ারের গ্রান্থামের উলসথর্প ম্যানরে অবস্থিত। মূল সেই গাছটি থেকে আপেল পড়ার কারণেই গবেষণা করে মাধ্যাকর্ষণ তত্ত্ব আবিষ্কার করেছিলেন নিউটন।

যদিও উনিশ শতকে ঝড়ো হাওয়ার কারণে মূল ওই গাছটি পড়ে যায় কিন্তু গাছটি এরপরও বেঁচে ছিল এবং পরে বছরের পর বছর ধরে গ্রাফিটিংয়ের মাধ্যমে গাছটির বংশবিস্তার করা হয়।

কিউরেটর ড. স্যামুয়েল ব্রোকিংটন বলছেন, নিউটনের মূল আপেল গাছের তিনটি ক্লোন বর্তমানে কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে আছে। এই তিনটির মধ্যে শুক্রবার ভেঙে পড়া গাছ একটি।