পরিচালকের ওপর চটেছেন মিমি

গ্ল্যামার গার্ল মিমি চক্রবর্তী। বিধানসভা ও টলিপাড়া— দুই নৌকায় সমানতালে সামলে চলছেন এই অভিনেত্রী। মিমির মুক্তিপ্রতীক্ষিত সিনেমা ‘মিনি’র ট্রেইলার প্রকাশের কথা ছিল ৮ এপ্রিল। সব ঠিকঠাকই চলছিল। ঝামেলাটা বেধে গেল আচমকা। নির্ধারিত তারিখের আগেই ‘মিনি’র ট্রেইলার ফাঁস হয়ে গেল। সেই খবর তাকে শুনতে হলো এক অনুরাগীর কাছ থেকে।

মঙ্গলবার রাতের এই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করেছেন মিমি। সেখানে দেখা যাচ্ছে, সাদা পোশাক পরিহিত মিমি একটি হোটেলে বসে আপন মনে মুঠোফোন দেখছিলেন। এমন সময় তার এক অনুরাগী এসে বলেন, “আপনার ‘মিনি’ সিনেমার ট্রেইলার দেখেছি। খুব ভালো হয়েছে।”

মিষ্টি হাসি দিয়ে তখনকার মতো পরিস্থিতি সামলে নিলেও আসলে কিন্তু বেজায় চটেছেন মিমি। সঙ্গে সঙ্গে ছবির পরিচালক মৈনাক ভৌমিককে দাঁড় করিয়েছেন কাঠগড়ায়। তাকে না বলে ট্রেইলার দেখানোর কৈফিয়ত চেয়েছেন তার কাছে।

ঘটনা এখানেই শেষ নয়। মৈনাক আমায় ট্রেইলার দেখতে ডাকল না— এমন কথা পোস্ট করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গত দু’দিন ধরে নালিশ দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। ফাঁস-কাণ্ডে মিমির মতোই বিরক্ত হয়েছেন সিনেমাটির প্রযোজক সম্পূর্ণা লাহিড়ি ও রাহুল ভঞ্জ। সেই সঙ্গে চটেছেন মিমির একরত্তি বোনঝিও।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্মাতা মৈনাকের উত্তর ছিল অনেকটা হেঁয়ালি ধরনের। ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে হাসতে হাসতে তিনি বলেন, ‘যা রটে তার কিছু তো বটেই।’

অনেকের ধারণা, মৈনাকই ঘটিয়েছেন এমনটা। তবে নেটিজেনরা বলছেন অন্য কথা। তারা মনে করছেন, এটি আসলে মিমি ও মৈনাকের কৌশল। সিনেমাটির প্রচার কৌশল হিসেবেই মূলত তারা এই পথ বেছে নিয়েছেন, আর কিছুই না।

মুক্তির আগে সিনেমার প্রচারণায় বিভিন্ন ধরনের কৌশল অবলম্বন করে থাকেন নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পীরা। এমন প্রচার-কৌশলের সঙ্গে সবাই পরিচিত। ট্রেইলার ফাঁসের এই ঘটনা যদি সাজানো হয়, তাহলে এমন অভিনব প্রচারণা এর আগে কখনও ঘটেনি টলিউডে।

খালা-ভাগ্নির গল্প নিয়ে তৈরি এই সিনেমাটিতে আরও অভিনয় করেছেন মিঠু চক্রবর্তী, সপ্তর্ষী মৌলিক, কমলিকা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ। সিনেমাটি মুক্তি পাবে ৬ মে।