যশোরে সেই মা-ছেলের মৃত্যু

যশোরে দেবরের অপবাদ সইতে না পেরে পাঁচ বছরের সন্তান হাসানুর রহমান বান্নার মুখে বিষ ঢেলে নিজেও বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী সালেহা বেগম (৩২) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে। মহিলা ওয়ার্ডের দায়িত্বরত চিকিৎসক ফারহানা ইয়াসমিন মাকে এবং শিশু ওয়ার্ডে দায়িত্বরত চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহ ছেলেকে মৃত ঘোষণা করেন।

গত বৃহস্পতিবার বিষপানের পর মা-ছেলেকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসক তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। এরপর সেখান থেকে তাদের ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। পরিবারের আর্থিক সামর্থ না থাকায় ফের যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন তারা। মৃত সালেহা বেগম সদর উপজেলার সাতমাইল তীরেরহাট গ্রামের মনিরুল ইসলামের স্ত্রী।

গত ১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যার দিকে প্রতিবেশী হাফিজুর রহমানের ছেলে রনি ওই গৃহবধূর ঘরে ঢুকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এ সময় চেঁচামেচি করলে রনি ঘর থেকে পালিয়ে যায়। পরদিন বিষয়টি নিয়ে সালিস হয়। সেখানে রনি নিজের অপরাধ স্বীকার করলে তাকে শাস্তিস্বরূপ জরিমানা করা হয়। পরে দেবর মনিরুজ্জামান মনি তার ভাবি সম্পর্কে খারাপ কথা বলেন।

এতে অভিমানে তিনি বৃহস্পতিবার পাঁচ বছরের শিশুপুত্র হাসানুর রহমান বান্নাকে বিষ খাইয়ে নিজেও বিষপান করেন। বিষয়টি পরিবারের সদস্যরা বুঝতে পেরে দ্রুত তাদের উদ্ধার করে যশোর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক ডা. ওবাইদুল কাদির উজ্জ্বল শিশু ও গৃহবধূর শারীরিক অবস্থা খারাপ দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজে রেফার্ড করেন।