মাদরাসা ছাত্র হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রাম ইউনিয়নের বার্তা গ্রামে মাদরাসা ছাত্র শরিফুল ইসলামকে (১৯) হত্যার দায়ে মো. সেলিম (৪০) নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেল পৌনে ৪টার দিকে মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক উৎপল ভট্টাচার্য্য সেলিম হোসেন ও নাজমা বেগমের উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০১০ সালের ১২ ডিসেম্বর বিকেলে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আসামিরা দাখিল পরীক্ষার্থী শরিফুল ইসলামকে ড্যাগার দিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে আটিগ্রাম ইউনিয়নের মাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশ থেকে স্থানীয়রা আহত শরিফুলকে উদ্ধার করে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় সেলিমসহ মোট ১৩ জনকে আসামি করে শরিফুলের বড় ভাই শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্তে ৯ আসামিকে অব্যাহতি দিয়ে ২০১১ সালের ২১ জুলাই আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। বাকি চার আসামির মধ্যে রায়ের আগেই মারা যান মামলার ২ নম্বর আসামি রহিজ উদ্দিন। মামলার শুরু থেকেই পলাতক রয়েছে ৩ নম্বর আসামি রাজু হোসেন। তাকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

মামলার আরেক আসামি নাজমা বেগমের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়।

মামলার বাদী শাহিনুর ইসলাম আদালতের রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় দ্রুত কার্যকর করার দাবি জানাচ্ছি।

মামলায় মোট ১৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১ জন তাদের সাক্ষ্য প্রদান করেন। আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ ফটো ও অ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম। আর রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এপিপি অ্যাডভোকেট মথুর নাথ সরকার।