বাড়ি ফেরার হিড়িক, নৌরুটে উপচে পড়া ভিড়

তিনদিনের ছুটিতে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরে ফেরায় যাত্রীদের চাপ বেড়েছে মাদারীপুরের শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে। বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) সকাল থেকে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাটের লঞ্চ, ফেরি ও স্পিডবোট ঘাটগুলোতে ছিল ঘরে ফেরা মানুষের উপচে পড়া ভিড়।

বাংলাবাজার ঘাট সূত্রে জানা গেছে, টানা তিন দিনের ছুটি থাকায় গতকাল বুধবার বিকেল থেকেই ঘরমুখো মানুষের চাপ বাড়ে নৌরুটে। লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে ছিল যাত্রীদের ভিড়। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেও যাত্রীদের ভিড় লেগে রয়েছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থলপথে টুঙ্গিপাড়া যাওয়ায় নিরাপত্তাজণিত কারণে ভোর থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত লঞ্চসহ নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল। পরে সকাল সাড়ে নয়টার পর নৌযান চলাচল স্বাভাবিক হলে যাত্রীদের ভিড় কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানায় বিআইডব্লিউটিএ’ বাংলাবাজার লঞ্চঘাট কর্তৃপক্ষ।

আবুল হোসেন নামে এক লঞ্চযাত্রী বলেন,‘লঞ্চে আজ ভীষণ চাপ ছিলো। তাছাড়া সাথে আজ বেশ গরম পড়েছে। অনেক গাদাগাদি করেই লঞ্চে নদী পাড় হয়েছি।’

ঢাকা থেকে আসা স্পিডবোটের যাত্রী নাসিমা আক্তার বলেন, ‘তিনদিনের ছুটি পেয়ে বাসায় যাচ্ছি। দক্ষিণ অঞ্চলের প্রায় মানুষ আমার মতোই ছুটি পেয়ে বাসায় যাচ্ছে। স্পিডবোটে উঠার জন্য অনেকক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। সকালের দিকে নৌ চলাচল বন্ধ থাকায় একসাথে চাপ পড়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র বাংলাবাজার লঞ্চ ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন বলেন, ‘তিনদিনের ছুটি থাকায় নৌরুটে ভিড় বেড়েছে সকাল থেকে। এদিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নৌরুট দিয়ে টুঙ্গিপাড়া গিয়েছেন সকালে। তখন নিরাপত্তার জন্য সকাল সাড়ে নয়টা পর্যন্ত নৌযান চলাচল বন্ধ ছিল। এখন নৌরুট স্বাভাবিক।

বিআইডব্লিউটিসির মাদারীপুর বাংলাবাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাউদ্দিন আহমেদ বলেন, ঘাটে আমাদের ৬টি ফেরি চলাচলা করছে। তিনদিনের ছুটি থাকায় আজ শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা ফেরিগুলোতে চাপ একটু বেশি ছিল।