কেরোসিনের আগুনে তৃতীয় লিঙ্গের শরীর ঝলসে দেওয়ার অভিযোগ

সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানের পরিবারের কাছে টাকা দাবি করতে গিয়ে নোয়াখালীতে চুমকি (২৫) নামে এক তৃতীয় লিঙ্গের একজনকে আগুনে ঝলসে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্তরা। ঘটনার জন্য উভয় পক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করেছেন। তবে প্রকৃত ঘটনা জানতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে থানা হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৮ মার্চ) সকালে জেলার সেনবাগ উপজেলার কাদরা ইউনিয়নের নিজসেনবাগ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে থানায় এসে শরীরে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেন তৃতীয় লিঙ্গের কয়েকজন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার (১৬ মার্চ) দুপুরে উপজেলার নিজসেনবাগ গ্রামের মধ্যপাড়া এলাকার রাজ্জাক পুলিশের বাড়িতে যায় তৃতীয় লিঙ্গের চুমকি ও সোহাগি। ওই বাড়িতে তখন জহিরুল ইসলাম নয়নের শিশুর জন্ম উপলক্ষে অনুষ্ঠান চলছিল। সে সময় চুমকি ও সোহাগি ওই বাড়ির লোকদের কাছে টাকা দাবি করলে এ ঘটনা ঘটে।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন চুমকি অভিযোগ করেন, আমরা জহিরুল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে ৫০০ টাকা দাবি করলে তারা আমাদের তিনশত টাকা দেয়। পরে আমরা আরও ২০০ টাকা দাবি করলে তারা টাকা না দিয়ে উল্টো আমার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে আমি পুকুরপাড়ে আগুন নেভাতে চেষ্টা করি।

তবে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে জহিরুল ইসলাম নয়ন বলেন, গত ১১ মার্চ দুপুরে তাদের পরিবারে কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। এরপর গত বুধবার তৃতীয় লিঙ্গের চুমকি ও তার সহযোগী সোহাগি তাদের বাড়িতে গিয়ে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করে। এ সময় বাড়িতে কোনো পুরুষ সদস্য না থাকায় নারীরা তাদের ৪০০ টাকা দিয়ে বিদায় করার চেষ্টা করেন। কিন্তু ওই দুই তৃতীয় লিঙ্গের চুমকি ও সোহাগি তাদের দাবিকৃত পাঁচ হাজার টাকার জন্য বাড়ির লোকেদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা শুরু করে।

একপর্যায়ে চুমকি ঘরের লোকজনকে ভয় দেখানোর জন্য নিজের শরীরে আগুন লাগানোর হুমকি দিয়ে রান্নার চুলা থেকে আগুন নিয়ে নিজের শরীরের কাছে নেয়। এ সময় অসাবধানতাবসত তার শরীরে আগুন ধরে যায়। পরবর্তীকালে বাড়ির লোকজন এসে তাদের ১৫শ’ টাকা দিলে তৃতীয় লিঙ্গের দলটি চলে যায়।

এ ব্যাপারে সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন বলেন, ঘটনার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নবজাতকের বাবা জহিরুল ইসলাম, তার দুই ফুফু আয়েশা বেগম ও বিবি রহিমা বেগমকে থানায় আনা হয়েছে। ঘটনাটিতে উভয় পক্ষের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রয়েছে। তবে তদন্ত করে বিষয়টিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।